Home"ধারাবাহিক গল্প"রংধনুর রঙ কালোরংধনুর রঙ কালো পর্ব ৩৮

রংধনুর রঙ কালো পর্ব ৩৮

"এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে। আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার। আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন "

#রংধনুর_রঙ_কালো
৩৮.

অরিনের খুব, খুব বলতে ইচ্ছে করল,” কেন সেদিন এমন করেছিলে ইলহান? যদি সেদিন তুমি সোফিয়াকে গ্রহণ না করতে তাহলে আমাদের জীবনটা অন্যরকম হতে পারতো। তুমি, আমি আর সাদিকা মিলে আমাদের একটা স্বপ্নের পরিবার হতো। শুধু তোমার সেই গর্হিত কাজটির জন্য আমাদের জীবন দুঃস্বপ্নের মতো হয়ে গেল। কেনো করেছিলে ইলহান তুমি এরকম? কেনো সবকিছু এভাবে শেষ করে দিলে?”
অরিন মনে মনে এইসব বলছিল আর কেঁদে ভাসাচ্ছিল। কান্নার দমক সামলাতে মুখে হাত দিয়ে হিঁচকি তুলছিল। ইলহান অপ্রস্তুত হলো। অরিনের কান্নার কারণ জানতে ইচ্ছে হলো। কিন্তু প্রশ্ন করতে ইচ্ছে হলো না। অরিনের সাথে কথা বলতে সংকোচ কাজ করে তার। এইযে কাল সে চলে যাবে। এরপর হয়তো আর কখনও দেখা হবে না অরিনের সাথে। ছোট্ট পুতুলের মতো সুন্দর মেয়েটার সাথেও। ইলহানের কিন্তু বিন্দুমাত্র দুঃখ নেই। সে তার ভাগ্য মেনে নিয়েছে। নিজেকে সে অনেক আগেই খুন করেছিল। এখন দেহটাকে মুক্তি দেওয়া বাকি। ইলহানের বাঁচতে ইচ্ছা করে না এই পৃথিবীতে। এতো গ্লানি, এতো হতাশা, এতো কষ্ট, অপরাধবোধের ক্লিষ্টতা নিয়ে সে বাঁচবে কেমন করে? অরিনের চোখে যখন সে নিজের জন্য ঘৃণা দেখতে পায় তখন বেঁচে থাকাটা আসলেই অর্থহীন মনে হয়। যখন সে প্রথম অন্বয়ের কাছে শুনেছিল যে অরিন তাকে ডিভোর্স দিতে চায় আর অন্বয়কে বিয়ে করতে চায় তখন খুব অবাক হয়েছিল। আসলে নিজের জীবনে অরিনের গুরুত্বটা সে টের পেয়েছে তখনি, যখন অরিন তাকে একটু একটু করে ছেড়ে যাচ্ছিল। আস্তে আস্তে সে বুঝতে পেরেছে শুধু আরেকবার অরিনকে পাওয়ার জন্য পৃথিবী বাজি রাখতেও তার আপত্তি নেই। কিন্তু সেই আরেকবার পাওয়ার সুযোগটাই অরিন তাকে দিল না। ক্ষমা করল না। সত্যিই কি ইলহানের কোনো সুযোগ পাওনা ছিল না? অরিন কি তাকে একটুও ভালোবাসেনি? যদি ভালোবাসতো তাহলে নিশ্চয়ই চাইতো আরেকবার তাদের ভাঙা সংসার জোড়া লাগাতে৷ অরিন কেনো সেটা চাইলো না? কেনো শেষ পর্যন্ত ইলহানকে একটা সুযোগ দিতে পারলো না সে? ডিভোর্সের সিদ্ধান্ত নেওয়া কি খুব জরুরী ছিল? ইলহান একটা তপ্ত দীর্ঘশ্বাস গোপন করল। অরিনকে খুব জিজ্ঞেস করতে ইচ্ছে করছিল,” কেন অরিন? কেন সেদিন ক্ষমা করলে না আমায়? কেনো আসবে বলেও আসলে না আমার কাছে? কেনো স্বপ্ন দেখিয়ে আবার সেই স্বপ্ন ভেঙে দিলে? হ্যাঁ আমিও তোমার সাথে অন্যায় করেছিলাম। কিন্তু ক্ষমাও তো চেয়েছিলাম। একটিবার কি ক্ষমা করা যেতো না? এতো বেশি ঘৃণা করতে আমাকে তুমি? এতোটাই বুঝি ঘৃণিত ছিলাম আমি? অবশ্য ভালোই হয়েছে এতে। কিছু জিনিস না হারালে গুরুত্ব বোঝা যায় না৷ তুমি হারিয়ে গুরুত্ব বুঝিয়ে দিয়েছো। তোমাকে ছাড়া বেঁচে থাকা কত কঠিন সেটা আমি এই পাঁচবছরের প্রত্যেক মুহুর্তে অনুভব করেছি। কি অদ্ভুত তাই না! তোমার ভালোবাসা আমাকে বদলাতে পারলো না। কিন্তু তোমার ঘৃণা ঠিকই বদলে দিল আমাকে। ভাগ্যিস তুমি আমায় ঘৃণা করেছিলে। নয়তো আমি বদলাতাম না। কোনোদিন বদলাতাম না।”
ইলহানের চোখের কোলে একফোঁটা স্বচ্ছ জল ভেসে উঠলো। অরিন স্পষ্ট দেখতে পেল সেই জলের ফোঁটা। অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকতে থাকতে হঠাৎ তার কিছু একটা হলো। দুম করে গিয়ে জড়িয়ে ধরল ইলহানকে। আর এক নিঃশ্বাসে কাঁদতে কাঁদতে বলল,” জানি না আমার কি হয়েছে। কিন্তু তোমাকে যেতে দিতে ইচ্ছা করছে না। আমি চাই না তুমি চলে যাও। প্লিজ তুমি যেও না ইলহান। হায় আল্লাহ, তুমি যেও না!”
ইলহান এক মুহুর্তের জন্য ডুবে গেল পুরোপুরি। মনে হলো, এইতো সে পেয়ে গেছে সব। ঠিক এই মুহুর্তে যদি মৃত্যু হয় তাহলে থাকবে না কোনো আফসোস। জীবনের সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ মুহুর্ত বুকে নিয়ে প্রাণত্যাগ করার সৌভাগ্য কয়জনের হয়? কিন্তু আরেকটু দেরি হলেই হবে সর্বনাশ। মায়া জন্মাবে, জন্মাবে লোভ, বেঁচে থাকার আকাঙ্খা, দুনিয়ার প্রতি ভালোবাসা। কিন্তু এখন তো ইলহানের মায়া কাটানোর সময়। ইলহান দুই হাতে সরানোর চেষ্টা করল অরিনকে। পারলো না। শরীরে একদম বল নেই তার। সকাল থেকেই সে খুব দূর্বল হয়ে আছে। একটু আগেই গাঁয়ে অনেক জ্বর এসেছে। অরিন টের পেয়ে যায়নি তো? বৃষ্টিতে ভিজে অবস্থা আরও খারাপ। ঠিক এই মুহুর্তে ইলহানের পুরো পৃথিবী চক্রাকারে ঘুরছে। নিজেকে এতো বলহীন মনে হচ্ছে যে দাঁড়িয়ে থাকার শক্তিটুকুও নেই। পেট মুচড়িয়ে বমি চলে আসলো। রক্তবমি! এর আগেও অনেকবার রক্তবমি করেছে সে। কিন্তু কারো সামনে করেনি। কাউকে জানায়ওনি বিষয়টি। যে মানুষের আজ বাদে কাল ফাঁসি হতে চলেছে তার জীবনটা অতিশয় তুচ্ছ, শরীরের অসুস্থতাগুলোও ঠুনকো। এসব নিয়ে অন্যকে বিরক্ত করার কি দরকার? অরিন মুখে দুই হাত ঠেকিয়ে ইলহানের অবস্থা দেখছিল। তার ভেতরটা শ্বাস রুদ্ধকর অনুভূতিতে অসাড় হয়ে যাচ্ছে। ইলহান বমি করতে করতে মেঝেতে লুটিয়ে পড়ল এবং মুর্ছা গেল।

আজ চল্লিশ দিন ধরে ইলহান কোমায়। হসপিটালের একটি নির্দিষ্ট বিছানা দখল করে তার অচেতন দেহ শুয়ে আছে দিনের পর দিন। বাহিরের জগতের প্রতি তার কোনো খেয়াল নেই। কত মানুষ ছটফট করছে,একটিবার তার কণ্ঠ শোনার জন্য, তার সাথে কথা বলার জন্য অপেক্ষা করছে আকুল হয়ে। তাকে দেখতে পরিচিত অপরিচিত অনেক মানুষ হসপিটালে এসে ভীড় জমিয়েছে। প্রতিদিনই কেউ না কেউ আসছে ইলহানকে একনজর দেখতে। ফাঁসি হয়ে গেলে কেউ বোধহয় জানতেও পারতো না তার মৃত্যুর খবর। কিন্তু টানা চল্লিশদিন হসপিটালে ভর্তি থেকে সে প্রত্যেকটি মানুষকে নাজেহাল করে তুলেছে। বুঝিয়ে দিচ্ছে তার গুরুত্বও কোনো অংশে কম নয়। এই কয়দিনে অরিনের একজন মানুষের সঙ্গে বেশ কয়েকবার দেখা হয়েছে। মানুষটির নাম অ্যাংকার। এতোদিন যার কোনো খোঁজ ছিল না। ইলহান-অরিনের বিয়ের আগে অ্যাংকার ছিল তাদের দু’জনেরই বেস্টফ্রেন্ড। ইলহান
অ্যাংকারের সাথে বাজি ধরেই অরিনকে বিয়ে করেছিল। তাদের মধ্যে শর্ত ছিল, যে হেরে যাবে সে আর কখনও অরিনের সামনে আসবে না। ইলহান জিতে গেছিল। অরিনকে বিয়ে করতে পেরেছিল। হেরে গেল অ্যাংকার। তাই শর্ত মোতাবেক সে আর কখনও অরিনের সামনে আসেনি। কিন্তু এইবার এসেছে। যে মানুষটির দুনিয়ার সঙ্গে কোনো যোগসুত্র নেই, ভয়ংকর রোগের সাথে যুদ্ধ করে যে কোমায় টিকে আছে তার সাথে করা শপথের আর মূল্যই বা কতটুকু। কিন্তু এইবার অ্যাংকারের সাথে কথা বলে অরিন যেটুকু জানতে পেরেছে তাতে মনে হলো তার চেনা পৃথিবীই যেনো পুরোপুরি বদলে গেছে। ইলহান অরিনকে ভালোবেসে বিয়ে করেনি, এটা ঠিক। কিন্তু বিয়ের পরেও হয়তো ভালোবাসতে পারেনি। কিংবা বেসেছিল কিন্তু বুঝেনি। তবে ডিভোর্সের পর ইলহান সত্যি উপলব্ধি করেছে সে শুধু অরিনকেই ভালোবাসে। এইযে, আজকে অরিনের ক্যারিয়ার এতো উঁচুতে৷ সে একজন সুপরিচিত মডেল। এই সবকিছুর পেছনে ইলহানের একটা ছোট্ট ভূমিকা আছে। অরিন সবসময় থেকেই খুব ফ্যাশন সচেতন ছিল। ফার্স্ট ক্লাস মেকাপ করতো সে। শুধু গায়ের রঙ নিয়ে মানুষের থেকে কপট বাক্য শুনতে শুনতে নিজের প্রতি একটা বিতৃষ্ণা চলে এসেছিল। কখনও সাহস হয়নি নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে স্বপ্ন দেখার। কিন্তু ইলহান অরিনের স্বপ্নের কথা জানতো। তাই মিসেস এলেক্সকে সে নিজেই অরিনের কাছে পাঠিয়েছিল। মিসেস এলেক্সের সেই ছোট্ট অনুষ্ঠানের জন্যই তো অরিনের এতো পরিচিতি। সেইদিক থেকে চিন্তা করলে ইলহানের ভূমিকাটাই এখানে মুখ্য। অ্যাংকার যখন অরিনকে এইসব বলছিল, অরিন থমথমে মুখে চুপচাপ বসে ছিল। তার এইসব কিচ্ছু শুনতে ভালো লাগছিল না। অ্যাংকারকে সে জীবনের সবচেয়ে ভালো বন্ধু ভেবেছিল। সেই বন্ধুটির হঠাৎ হারিয়ে যাওয়ায় দুঃখও পেয়েছিল। আজ এতোবছর পর সেই বন্ধুটি এসে তাকে এমন কিছু সত্যি জানালো যেগুলো না জানলেই হয়তো ভালো ছিল। সোফিয়াও অস্ট্রেলিয়া থেকে এসেছে ইলহানকে দেখতে। সে অনেক বার অরিনের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু অরিন সোফিয়াকে কথা বলার সুযোগ দেয়নি। এই মেয়েটির জন্যই ইলহান তার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল। ইলহানকে মাফ করতে পারলেও সোফিয়াকে সে কোনোদিন মাফ করতে পারবে না। সোফিয়ার মতো অন্বয়ও অরিনের সাথে দেখা করার জন্য তাকে খুঁজছে। আজ অনেকদিন পর অন্বয় বাংলাদেশের মাটিতে পা রেখেছে৷ এতোবছর ক্যারিয়ারের কাজে সে ছিল প্রচুর ব্যস্ত মানুষ। ইলহানের ফাঁসির খবর সে পেয়েছিল কিন্তু অরিনকে জানায়নি। তার ধারণা ইলহানের এমন একটা পরিণতির দরকার ছিল। কিন্তু এইখানে এসে, ইলহানের ভয়ংকর অবস্থা দেখে, আশেপাশের মানুষের দুঃখ কষ্ট দেখে তার সত্যি খারাপ লাগছে। বেশি খারাপ লাগছে ছোট্ট মেয়ে সাদিকার জন্য। আরেকজনের জন্যও খারাপ লাগছে। অর্ণভের কাছে অন্বয় শুনেছে, সাদিকা অষ্টপ্রহর ইলহানের কেবিনের কাছে দাঁড়িয়ে থাকতে চায়। সে চায় ইলহান চোখ খুলে সর্বপ্রথম তাকেই দেখুক। বাচ্চা মেয়েটি মনে করছে ইলহান ঘুমিয়ে আছে। একদিন তার ঘুম ভাঙবে। কিন্তু ঘুমটা ভাঙতে দেরি লাগছে। আরও কত দেরি লাগবে তা কেউ জানে না। বড়রা কেউ তাকে এ বিষয়ে বলছে না। সাদিকার ইদানীং খুব মনে পড়ছে তার আর ইলহানের প্রথম দেখার কথা। তখন সাদিকা মিহরীমার সাথে উঠানে ছোয়াছুয়ি খেলছিল। সুমনা হঠাৎ মিহরীমাকে ডাক দেওয়ায় সে ভেতরে চলে যায়৷ সাদিকাকে একটা চেয়ারে বসে থাকতে বলে। মিহরীমা চলে যাওয়ার পর সাদিকার একটু ভয় লাগছিল। সে মুখ গোমরা করে চেয়ারে বসে রইল। তখন একটি লম্বা কালো অবয়ব টর্চের আলো ফেলল সাদিকার মুখে। সাদিকা চোখে হাত দিয়ে হেসে ফেলল। তার ধারণা ওইটা অর্ণভ মামা। সে মাঝে মাঝে সাদিকার সাথে এমন দুষ্টুমি করে। অবয়বটি কাছে এসে সাদিকাকে কোলে তুলে নিল। কানে কানে বলল,
” একটা ম্যাজিক দেখবে?”
সাদিকা চোখ খুলে ইলহানকে দেখে একটু ভয় পেল। কিন্তু ম্যাজিকের কথা শুনে লোভ সামলাতে পারল না। দ্রুত ঘাড় নেড়ে বলল,” হু, ম্যাজিক দেখবো।”
ইলহান সাদিকাকে নিয়ে ঝিলপাড়ে চলে এলো। কাচের বাক্সে বন্দী জোনাকি পোকা সাদিকার সামনে মেলে ধরল। সাদিকা বলল,” ওয়াও, এগুলো খুব সুন্দর লাইট।”
ইলহান সাদিকাকে বলল,” বাক্সের মুখটা খুলে দাও। তারপর দেখতে পাবে আসল ম্যাজিক।”
সাদিকা মুখ খুলে দিতেই জোনাকিপোকারা উড়ে উড়ে পুরো ঝিলপাড় আলোকিত করে দিল। সাদিকা লাফিয়ে উঠে দুইহাতে তালি বাজাচ্ছিল। খিলখিল শব্দে হাসতে লাগল।। ইলহান মুগ্ধ চোখে দেখছিল সাদিকার উচ্ছ্বসিত চেহারা। মেয়েটা ঠিক তার স্বপ্নের মতই হয়েছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় তার নিজের জীবনটাই এখন দুঃস্বপ্ন। কি নিষ্ঠুর নিয়তি! এই মেয়েকে রেখে সে মরবে কেমন করে? সাদিকা হঠাৎ লাফালাফি থামিয়ে ইলহানের সামনে এসে দাঁড়ালো। ইলহানের রক্তলাল ঠোঁটের দিকে তাকিয়ে বলল,
” আচ্ছা তুমি কে?”
ইলহান হাসি হাসি মুখে বলল,” আমার নাম ইলহান।”
সাদিকা ইলহানের টোলে ছোট্ট আঙুল ডুবিয়ে বলল,
” ইলহান, তুমি অনেক সুন্দর।”
ইলহানের এতো ভালো লাগল। সাদিকার ছোট্ট হাত চেপে ধরে হ্যান্ডশেক করতে করতে বলল,” তাই? তাহলে এখন থেকে তুমি আমার বেস্টফ্রেন্ড হবে?”
” হ্যাঁ হবো। নিশ্চয়ই হবো। আজকে থেকে আমরা বেস্টফ্রেন্ড।”
কিন্তু তার বেস্টফ্রেন্ড হঠাৎ তার সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দিয়েছে। বেস্টফ্রেন্ড কি রাগ করেছে? সাদিকার ভালো লাগে না কিছু। কবে ইলহান কথা বলবে? কবে চোখ মেলে তাকাবে? আহারে!

চলবে

-Sidratul Muntaz

"এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে। আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার। আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন "

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments

মোহাম্মদ মোহাইমিনুল ইসলাম আল আমিন on তোমাকে ঠিক চেয়ে নিবো পর্ব ৪
error: Alert: Content is protected !!